মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি সহ সকল বৈধ এবং অবৈধ প্রবাসীরা পাবেন ফ্রি করোনার টিকা

এশিয়া মহাদেশের অন্যতম দেশ মালয়েশিয়ায় বসবাসরত বৈধ ও অবৈধ সকল প্রবাসী বাংলাদেশী সহ সর্বস্তরের অভিবাসী কর্মীদের বিনামূল্যে কোভিট-১৯ ভ্যাকসিন দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে সরকার।

মালয়েশিয়া নাগরিকদের যখন যে প্রক্রিয়ায় এই ভ্যাকসিন দেওয়া হবে সকল বিদেশি অভিবাসীদেরও একসাথেই এই টিকা দেওয়া হবে। এক্ষেত্রে তারা অগ্রাধিকার পাবে।

আমরা যদি সব বিদেশিদের করোনা ভাইরাসের টিকা না দেই তাহলে এই করেনা মহামারী দমন করা সম্ভব হবে না। কারন তাদের মধ্যে সংক্রমন এর প্রাদূর্ভাব দেখা গেছে। তাছাড়া ডিটেনশন ক্যাম্পে সংশ্লিষ্ট যারা আছেন তাদের কে ও টিকার আওতায় আনা হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার (১১ ফেব্রুয়ারী) মালয়েশিয়ার স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডাঃ আদাম বাবা স্থানীয় সংবাদমাধ্যমে এক সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন। এসময় তিনি আরো বলেন, এলক্ষ্যে সরকার কর্ম পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজ করছে এবং ইতিমধ্যে পেনাং প্রদেশে ১০০ টি ক্লিনিক প্রস্তুত করা হচ্ছে।

এই বিষয়টি দেশটির মন্ত্রীসভার এক বিশেষ বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। অবৈধ অভিবাসীদের ও টিকা দেওয়া হবে।

মালয়েশিয়ার সরকার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ফাইজারের কোভিট- ১৯ ভ্যাকসিন চুক্তি অনুযায়ী ক্রয় সম্পন্ন করেছে। আশা করা যাচ্ছে চলতি ফেব্রুয়ারী মাসের শেষ সপ্তাহে এই টিকার প্রথম চালান দেশে এসে পৌছাবে।

তখন যত দ্রুত সম্ভব এই ভ্যাকসিন গনহারে দেওয়ার কার্যক্রম শুরু করা হবে। এবং এই টিকা কার্যক্রমে শরনার্থী রোহিঙ্গারা ও বাদ যাবে না।

মালয়েশিয়ার বিজ্ঞান, প্রযুক্তি ও উদ্ভাবনী বিষয়ক মন্ত্রী খয়েরি জামালউদ্দিন আজ পৃথক বিবৃতিতে বলেছেন যে, জাতীয় কোভিড -১৯ টিকা প্রদান কার্যক্রমে আওতাভুক্ত করা হয়েছে যেমন,

বিদেশীদের মধ্যে কূটনীতিক, প্রবাসী, শিক্ষার্থী, বিদেশী স্বামী ও শিশু, বিদেশী সব সেক্টরের কর্মী ও শ্রমিক , ইউএনএইচসিআর (শরনার্থী) কার্ডধারীরা।

মালয়েশিয়ায় করোনা মোকাবিলায় চলছে জরুরি অবস্থা ও লকডাউন। গত বছরের চেয়ে এবার তৃতীয় ঢেউয়ে করোনার আক্রমণ ছিল ভয়াবহ। দেশটিতে বৈধ ও অবৈধ মিলিয়ে ধরানা করা হয় প্রায় ১২ লাখেরও বেশি বাংলাদেশী রয়েছেন।

এই মহামারীর কারণে দেশে যারা ছুটিতে আছেন তারা মালয়েশিয়ায় ফিরতে পারছেন না এবং যারা মালয়েশিয়ায় আছেন তারাও ছুটিতে দেশে যেতে পারছেন না। বাংলাদেশে কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন প্রদান চলমান থাকলেও মালয়েশিয়ায় এখনো শুরু হয়নি। আশা করা যাচ্ছে শ্রীঘ্রই এ কার্যক্রম শুরু হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *