উপসাগরীয় দেশ সৌদি আরবের বিচার ব্যবস্থায় অভাবনীয় পরিবর্তনের ডাক দিলেন যুবরাজ সালমান

উপসাগরীয় দেশ সৌদি আরবে ধারাবাহিক সামাজিক ও অর্থনৈতিক সংস্কারের পাশাপাশি এবার দেশটির বিচার ব্যবস্থায় দক্ষতা ও অখণ্ডতা বাড়াতে ব্যাপক সংস্কারের ঘোষণা দিয়েছেন সৌদির প্রভাবশালী যুবরাজ মোহাম্মাদ বিন সালমান।

সোমবার (০৮ ফেব্রুয়ারি) বিচার ব্যবস্থা নিয়ে সালমান নতুন পরিকল্পনার কথা জানান। এ পদক্ষেপের মাধ্যমে লিখিত আইনের দিকে যাত্রা শুরু করবে সৌদি আরব।

যুবরাজের উদ্ধৃতি দিয়ে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলো জানিয়েছে, পারিবারিক আইন, নাগরিক লেনদেন আইন, বিবেচনামূলক নিষেধাজ্ঞা আইন ও সাক্ষ্য আইন, এই চারটি নতুন আইন বর্তমানে চূড়ান্ত করা হচ্ছে। তবে চূড়ান্ত অনুমোদনের আগে মন্ত্রিসভা ও শুরা কাউন্সিলের কাছেও জমা দেওয়া হবে।

এক বিবৃতিতে সালমান জানান, ‘নতুন সংস্কার নতুন ধারার প্রতিনিধিত্ব করে। এই উদ্যোগে মামলার রীতি ও তদারকির পদ্ধতিগুলোর নির্ভরযোগ্যতা বাড়বে। আর ন্যায়বিচারের নীতিগুলো অর্জনের ভিত্তি হিসেবে কাজ করবে।’ একই সঙ্গে জবাবদিহিতা নিশ্চিতকরণে ভূমিকা রাখবে বলেও মনে করেন তিনি।

সৌদি আরবের বাদশাহ সালমানের ছেলে মোহাম্মদ বিন সালমানের যুবরাজ হওয়ার নানা পদক্ষেপ নিয়ে রক্ষণশীল সৌদি আরবকে বিশ্ব দরবারে আলোচনার জন্ম দেন। তার হাত ধরেই পরিবর্তনের পথে হাঁটছে দেশটি।

ভিশন ২০৩০-এর মাধ্যমে সৌদির সামাজিক ও অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে বড় ধরনের পরিবর্তনের সূচনা করেছেন প্রভাবশালী যুবরাজ সালমান। এর লক্ষ্য যুব সম্প্রদায়ের অধিক সংখ্যকের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা।

ইতিমধ্যে নাগরিকদের বিনোদনের জন্য চলচ্চিত্র প্রদর্শনীর ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়েছেন তিনি। তার কল্যাণেই নারী-পুরুষ এখন কনসার্টে যেতে পারেন। অন্যদিকে সৌদিতে নারীদের গাড়ি চালানোর ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হয়েছে। সোদির মতো রক্ষণশীল দেশে এখন গাড়িতে চালাতে পারছেন দেশটির নারীরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *