আলুর কেজি ৬ টাকা, মাথায় হাত

গেলো মৌসুমে আগাম আলু বিক্রি হয়েছিল বেশ চড়া দামে, মাঠেই বিক্রি হয়েছে ২৫-৩০ টাকা কেজি দরে। সেটি মা’থায় রেখে এবার আগাম আলু আবাদ বেশি করেন ঠাকু;রগাঁওয়ে চা’ষিরা, কি’ন্ত দাম নেমেছে ৬ টাকায়।

তার’পরেও ক্রে;তা না মে;লায় মা’থায় হাত পড়েছে এই জে’লার আলু চা’ষিদের।

কৃষি সম্প্রসারণ অধি’দপ্তর জানিয়েছে, ঠাকু’রগাঁওয়ে ২৭ হাজার ৬৪৭ হে’ক্টর জমি’তে আ’লু আবাদ করা হয়েছে। এর মধ্যে ২ হাজার ৭৭০ হেক্ট’রের আলু

এরইমধ্যে বা’জারে ছাড়া হয়েছে। প্রতি হে’ক্টরে দুই লাখ টাকা ব্যয় করে ২৪ মে’ট্রিক টন করে আলু পাওয়া গেছে, তার দাম এসে’ছে লাখ খানেক টাকা।

স্থানীয় বাজার ঘুরে দেখা গেছে, এস্টা’রিক্স জাতের লাল আলু ১০ টাকা আর গ্র্যানোলা জাতের সাদা আলু ৬ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। গত বছরের কিছু আলু মজুত থাকায় এবার দাম কমেছে নতুন আলুর। ফলে পুরো’নো আলু শেষ হলে দাম কি’ছুটা বাড়বে বলে মনে করেন ব্যবসা’য়ীরা।

চাষিরা বলছেন, গেলো’বারে আ’লুর দাম চা’ঙা থাকায় বেশি জমিতে এবার আলু আবাদ করেছেন তারা।

আগেরবার লাভ হলেও এবার খরচের অর্ধেক উঠছে। লোকসানে বিক্রি করার পরেও নগদ টাকার ক্রেতা মিলছে না।

এ বিষয়ে ঠাকু’রগাঁও কৃষি সম্প্র’সারণ কর্মক’র্তা আবু হোসেন জানান, পুরো’নো আলুর মজুত শেষে হলে নতুন আলুর বাজার ঠিক হয়ে যাবে।

আ’লু ভালো অব’স্থায় রাখতে প্রয়ো’জনীয় পরা’ম’র্শ দেয়া হচ্ছে, সে জন্য মাঠ পর্যা’য়ে কাজ করা হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.