ছুটির দিনে বাণিজ্য মেলায় উপচে পড়া ভিড়

সাপ্তাহিক ছুটির দিনে ঢাকা, আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার ২৬ তম আসরের ১৪ তম দিনে বেড়েছে ক্রেতা-দর্শনার্থী। ফলে মেলার আশপাশে মহাসড়কে, দেখা গেছে তীব্র যানজট।

শুক্রবার সকাল থেকে দূর-দূরান্ত থেকে, আসা ক্রেতা দর্শনার্থীদের মেলা প্রাঙ্গণে প্রবেশের সময় সমস্যা না হলেও সেখান থেকে বের হয়ে নিজ নিজ, বাড়িতে যেতে চরম ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে তাদের।

সরকারি নির্দেশে যত সিট তত যাত্রী ঘোষণার ,পর পরই যাত্রীবাহী বিআরটিসি বাস যাত্রী নিয়ে কুড়িল বিশ্বরোড থেকে মেলা প্রাঙ্গণে আসা যাওয়া, করতে দেখা গেছে।

কোভিড-১৯ পরিস্থিতির ভয়াবহতা নিরসনে ,স্বাস্থ্য বিধি মানতে কড়াকড়ি আয়োজন থাকলেও মেলায় তা মানতে দেখা যায়নি। করোনা যে হারে বাড়ছে, সে পরিস্থিতিতেও জনসচেতনতা দেখা যায়নি। বেশিরভাগ দর্শনার্থীদের মুখে নেই মাস্ক।

সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, মেলার আগত দর্শনার্থীদের ,স্বাস্থ্যগত নিরাপত্তার জন্য প্রবেশ পথ ছাড়াও তাদের পণ্য প্রদর্শনীর জন্য স্টলে স্টলে রাখা হয়েছে মাস্ক, স্যানিটাইজার। নিরাপদ দূরত্ব রেখে, মাস্ক ব্যবহার

করে মেলায় প্রবেশের জন্য মাইকিং করে সতর্ক, করা হচ্ছে। মেলায় পাশে থাকা এশিয়ান বাইপাস ও কাঞ্চন-কুড়িল বিশ্বরোড (৩০০ ফুট) সড়কে সংস্কার, কাজ চলমান থাকায় তীব্র যানজট সৃষ্টি হয়েছে।

সৃষ্ট যানজট কাঞ্চন সেতুর টোলপ্লাজা থেকে ,উলুখোলা পর্যন্ত প্রায় ৫ কিলোমিটার সড়কে যানচলাচল বন্ধ হয়ে যায়। প্রতি ছুটির দিনেই বিকেল ৫ টা ,থেকে রাত পর্যন্ত এমন জটিল পরিস্থিতি তৈরি হয়।

ট্রাফিক ইন্সপেক্টর (টিআই) ,জহিরুল ইসলাম বলেন, আমাদের ট্রাফিক বিভাগের পূর্ব নির্ধারিত জনবল পুলিশ সদস্য ছাড়াও মেলায় দায়িত্বরত,সদস্যরা বিশেষ টিম হয়ে কাজ করছেন। তবু এশিয়ান বাইপাস সড়কে নির্মাণ কাজ চলমান থাকায় ,সরকারি ছুটির দিনে জটিল হচ্ছে পরিবহন যাতায়াত।

ব্যবসায়ীদের দাবি, এতোদিন জমজমাট বেচাকেনা চললেও করোনা পরিস্থিতি জটিল হওয়ায় সরকার জরুরি বিধি নিষেধ আরোপ করায় দুশ্চিন্তায় ছিলেন। তবে দর্শনার্থীর সংখ্যা বাড়ায় কিছুটা স্বস্তি পাচ্ছেন তারা।

স্থানীয় বাসিন্দা মনিরুজ্জামান বলেন, প্রজ্ঞাপনে ওমিক্রনসহ করোনা শনাক্তের হার বাড়তে থাকায় মাস্ক ছাড়া রাস্তায় বের হলে জরিমানার বিধানসহ ১১ দফা বিধি-নিষেধ জারি করা হয়েছে। ঐ বিধি বিধানের জন্যই প্রথমদিন দর্শনার্থী কিছুটা কম হলেও ছুটির দিনে পর্যাপ্ত লোক সমাগম হয়েছে।

রফতানি উন্নয়ন ব্যুরো ( ইপিবি) সচিব ও মেলার পরিচালক মো. ইফতেখার আহমেদ চৌধুরী বলেন, স্বাস্থ্য অধিদফতরের নির্দেশনা বাস্তবায়ন করতে মেলায় আগত দর্শনার্থীদের স্বাস্থ্য বিধি

মানতে বাধ্য করা হচ্ছে। তবে ছুটির দিনে দর্শনার্থী বেড়ে যাওয়ায় স্বাস্থ্যবিধি মানতে কিছুটা হিমশিম খেতে হয়। এ সময় দর্শনার্থী, ক্রেতা ও ব্যবসায়ীদের স্বাস্থ্য বিধি মানার অনুরোধ করেছেন তিনি।

তিনি আরো বলেন, গত বছর বন্ধ থাকার পর এবার আশা নিয়ে মেলা শুরু হয়েছিলো। কিন্তু আবার করোনার ধাক্কা আসছে। ফলে মেলা নিয়ে দুশ্চিন্তা বেড়েছে ব্যবসায়ীদের। এমন কি অবিক্রিত থেকে যেতে পারে মালামাল। তবে ছুটির দিনগুলো আশার আলো জাগাচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.